শিলাজিৎ কি?

শিলাজিৎ হল একটি প্রাকৃতিকভাবে উপলব্ধ খনিজ পদার্থ যা পাওয়া যায় ভারতীয় উপমহাদেশের হিমালয় ও হিন্দুকুশ পর্বতমালায়। এটি একটি বিরল প্রজাতির রজন যা তৈরি হয় হাজার বছর ধরে পচন ধরা গাছ ও উদ্ভিদের উপকরণ থেকে। এই আটকে থাকা উদ্ভিদ উপকরণ বাদামী থেকে কালো রঙের চটচটে আঠার মত একটি পদার্থ হিসেবে বেরিয়ে আসে পাথরের ফাঁক থেকে। আয়ুর্বেদ, ভারতের ঐতিহ্যবাহী ওষুধ ব্যবস্থা হাজারো বছর ধরে শিলাজিৎ ব্যবহার করে চলেছে এটির স্বাস্থ্যবর্ধক বৈশিষ্টের জন্য। চরক সংহিতা ও সুশ্রুত সংহিতা, যেখানে এটি “সোনার মত ধাতব পাথর” এবং নরম ও আঠাল বস্তু হিসেবে বর্ণিত আছে। আয়ুর্বেদে শিলাজিৎকে একটি “রসায়ন”(শক্তিদায়ক ওষুধ)হিসেবে ধরা হয় এর সার্বিক স্বাস্থ্য উন্নীত করার উপকারিতা উল্লেখ করার সময়। আসলে, শিলাজিৎ নামটি অনুবাদ করলে যথাযোগ্যভাবেই তা দাঁড়ায় “পর্বতশৃঙ্গের বিজয়ী ও দুর্বলতার ধ্বংসকারী”। দুর্ভাগ্যবশতঃ, আধুনিক বিজ্ঞানের এই প্রাকৃতিক আশ্চর্যটিকে এখনও অনুসন্ধান করা বাকি।

জানতেন কি?

আয়ুর্বেদিক ডাক্তারদের মতে, শিলাজিতের গন্ধ গোমূত্রর মত বলা হয়। লোককথায় দাবি করা হয় যে যদি এটি নির্ভেজাল রূপে সেবন করা হয়, তাহলে এটি পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের ক্ষেত্রেই চূড়ান্ত উপকারী।

শিলাজিৎ সম্পর্কিত কিছু প্রাথমিক তথ্যঃ

  • লাতিন নামঃ অ্যাসফাল্টাম পাঞ্জাবিনিয়াম
  • প্রচলিত নামঃ দস্তা, খনিজ পিচ, খনিজ মোম, শিলাজিৎ
  • সংস্কৃত নামঃ শিলাজিৎ,শিলাজিতা
  • ভৌগলিক বন্টনঃ শীলাজিৎ সাধারণত অত্যন্ত সহজলভ্য হিমালয়ে যার মধ্যে হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, অরুণাচল প্রদেশ এবং কাশ্মীরে এটি বৃহত্তম পরিমাণে মজুদ রয়েছে। চীন, নেপাল, পাকিস্তান, তিব্বত, এবং আফগানিস্তানেও এটি পাওয়া যায়।
  1. শিলাজিতের স্বাস্থ্যপকারিতা - Health benefits of shilajit in Bengali
  2. শিলাজিতের ব্যাবহার - How to use Shilajit in Bengali
  3. শিলাজিৎ সেবনের মাত্রা - Shilajit dosage in Bengali
  4. শিলাজিতের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - Shilajit side effects in Bengali

শিলাজিতের বেশ কিছু নিরাময়কারী উপকারিতা আছে তবে এটি বিশেষতঃ পরিচিত একটি স্বাস্থ্যবর্ধক টনিক হিসেবে। ভাল স্বাস্থ্য উন্নীত করার ক্ষেত্রে শিলাজিতের কিছু ব্যবহার সম্পর্কে একটু খতিয়ে দেখা যাক।

  • ওজন কমানোয় সহায়তাঃ ক্লিনিকাল গবেষণা ইঙ্গিত করে যে শিলাজিতে কিছু সক্রিয় মৌল রয়েছে যা BMI বাড়িয়ে ওজন ও কোমরের পরিধি কমাতে সাহায্য করে।
  • কোষ্ঠকাঠিণ্য কমায়ঃ শিলাজিৎ শরীরে টনিকের মত কাজ করে যার ফলে এটি অন্ত্রের পেশীগুলিকে শক্ত করে হজমে সাহায্য করে এবং শরীর থেকে খাদ্য নিষ্কাশন করে কোষ্ঠকাঠিণ্য থেকে মুক্তি দেয়ে।
  • শুক্রাণুর গুন্তি বাড়ায়ঃ 1.5 মাস ধরে নিয়মিত শিলাজিৎ সেবন করলে তা বীজকোষ উদ্দীপক হরমোন বাড়িয়ে তোলে যার ফলে এটি শুক্রাণুর গুন্তি বাড়ানোর ক্ষেত্রে যে বিশেষ ভাবে কার্যকর তা দেখা গেছে।
  • পাহাড়ি অসুস্থতা থেকে মুক্তি দেয়ঃ উচ্চতার কারণে হওয়া অসুস্থতার সার্বিক সমাধান হল শিলাজিৎ। এটি যে শুধুমাত্র চাপ ও উদ্বেগ থেকেই মুক্তি দেয় তা নয়, উচ্চতার কারণে হওয়া ফুসফুসের সমস্যা হাইপক্সিয়াও কমিয়ে দেয়।
  • রক্তাল্পতা থেকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেয়ঃ শিলাজিৎ হল লোহার একটি ভাল উৎস, যা হিমোগ্লোবিন ও লাল রক্তকোষের গুন্তি বাড়ায়। টনিক হওয়ার কারণে এটি রক্তাল্পতাগ্রস্ত লোকজনদের মধ্যে দুর্বলতা ও ক্লান্তি কমায়।
  • অ্যালজাইমার অগ্রগতি থামায়ঃ গবেষণায় প্রমাণিত তথ্য ইঙ্গিত করে যে শিলাজিতে থাকা ফাল্ভিক অ্যাসিড মস্তিষ্কে টাউ প্রোটিনের অতিরিক্ত পুঞ্জিভূত হওয়া রোধ করে, অন্যভাবে বলতে গেলে যা স্নায়ুক্ষয় ও অ্যালজাইমার’স হওয়ার কারণ,তা আটকায়।
  • পাকস্থলিতে ঘা হওয়া আটকায়ঃ শিলাজিৎ গ্যাস্ট্রিক নিঃসরণ কমিয়ে পাকস্থলির আস্তরণকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে আল্সার হওয়া রোধ করে বলে শোনা যায়।

ডায়াবিটিসের জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for diabetes in Bengali

আয়ুর্বেদে শিলাজিৎ তার ডায়াবিটিসরোধী বৈশিষ্টের জন্য পরিচিত। ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ও ডায়াবিটিসের লক্ষণগুলি কমাতে আয়ুর্বেদিক ডাক্তারেরা ডায়াবিটিসে আক্রান্ত রুগীদের শিলাজিৎ সেবন করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। উপরন্তু, আয়ুর্বেদিক ডাক্তারেরা শিলাজিৎ সেবন করার উপদেশ দিয়ে থাকেন বারংবার রাত্রিকালীন প্রস্বাব, যা বার্ধক্য ও ডায়াবিটিসের লক্ষণ, তা কমাতে। ভারতে হওয়া কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করে যে ডায়াবিটিসরোধী ওষুধের সাথে শিলাজিৎ সেবন করলে তা শুধুমাত্র প্রথাগত ওষুধের চেয়ে বেশি কার্যকর রক্তে শর্করাভাব কমাতে। যদিও, মানুষের ওপর গবেষণার অভাবের কারণে ডায়াবিটিসে আক্রান্ত রুগীদের ডাক্তারদের সাথে পরামর্শ করে নেওয়া বাঞ্ছনীয় যে কোন আকারে শিলাজিৎ সেবন করার আগে।

কোলেস্টেরলের জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for cholesterol in Bengali

আয়ুর্বেদ অনুযায়ী শিলাজিৎ কোলেস্টেরলের মাত্রা পরিচালন করতে কার্যকর। গবেষণা প্রমাণ করে যে নিয়মিত 2 গ্রাম শিলাজিৎ সেবন করলে তা বেশি ঘনত্বের চর্বি বা “ভাল কোলেস্টেরল”-এর মাত্রা বাড়ানোর সাথে সাথেই কম ঘনত্বের চর্বি বা “খারাপ কোলেস্টেরল” কমাতে সক্ষম। এও ইঙ্গিত করা হয় শিলাজিতে থাকা ফাল্ভিক অ্যাসিড এই রজনের হাইপলিপিডেমিক(রক্তে কোলেস্টেরল কমায়)। উপরন্তু, শিলাজিতে ভিটামিন সিভিটামিন ই আছে যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে পরিচিত। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ধমনীতে প্লাক জমে ওঠা থেকে আটকায়, যার ফলে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার ঝুঁকি কমে যায়।

ওজন কমাতে শিলাজিৎ - Shilajit for weight loss in Bengali

বিশ্বজুড়ে বেড়ে ওঠা স্বাস্থ্য সম্পর্কিত চিন্তার কারণের অন্যতম হল স্থুলতা। আধুনিক সংস্কৃতি এবং জীবনধারা এই সমস্যা সামাল দেওয়াকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়। বস্তুতঃ WHO স্থুলতাকে “বিশ্বের মহামারী” আখ্যা দিয়েছে। গবেষণার আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশ হওয়া একটি প্রবন্ধ ইঙ্গিত করে যে শারীরিক টিস্যুগুলিতে অক্সিজেনের জোগান ও চাহিদার মধ্যে ভারসাম্য না থাকাই স্থুলতার প্রধান কারণ। উপরন্তু এও বলা হয় যে শিলাজিৎ হল ফাল্ভিক অ্যাসিড, খনিজ বস্তু ও লোহার একটি অত্যন্ত ভাল উৎস, যা শরীরে লাল রক্তকোষের সংখ্যা বাড়ায়। সেই কারণে, যত তাড়াতাড়ি এই কোষগুলি প্রতিস্থাপন  হবে, তত তাড়াতাড়ি টিস্যুগুলিতে অক্সিজেনের জোগান পৌঁছবে।

ওজন কমানোর প্রোগ্রামে শিলাজিতের একটি সম্পূরক হিসেবে প্রভাব পরীক্ষা করা হচ্ছে। ভারতে হওয়া একটি গবেষণায় 70জন লোকের একটি দলের ওপর শিলাজিতের প্রভাব পরীক্ষা করে দেখা হয় এবং দেখা যায় যে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ওজন কমার সাথে সাথে তাদের পেটের ভাঁজ এবং নিতম্ব ও কোমরের পরিধিও কমে।

একটি দলের ওপর হওয়া অন্য একটি গবেষণায় দেখা যায় যে শিলাজিতের সাথে অগ্নিমন্থ(ক্লেরোডেনড্রাম ফ্লোমিডিস)সেবন করলে তা শারীরিক ওজন ও বেসাল মেটাবলিক ইনডেক্স(BMI)কমাতে কার্যকর। সুতরাং, শিলাজিৎ যে ওজন কমানোয় খুবই কার্যকর তা খুব সহজেই বলা যায়।

কোষ্ঠকাঠিণ্যের জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for constipation in Bengali

কোষ্ঠকাঠিণ্যের মত হজম সংক্রান্ত সমস্যা ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে আজকাল। কোষ্ঠকাঠিণ্যে  আক্রান্ত লোকজনেরা প্রায়শই বদ্ধতা অনুভব করার নালিশ জানায়। কিছু চরম ক্ষেত্রে মলদ্বারে রক্তপাতেরও উল্লেখ রয়েছে। যদিও একজন ব্যক্তির ক্ষেত্রে দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিণ্যের কারণ নির্দিষ্ট করে বলা কঠিন, তবুও সাধারণত তাদের জীবনধারা, খাদ্যাভ্যাস ও দেহতত্ত্বের ওপরেই এটি নির্ভর করে থাকে।

আয়ুর্বেদে শিলাজিৎ দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিণ্য সারানোর একটি দুর্দান্ত প্রতিনিধি হিসেবে পরিচিত। রসায়ন বা স্বাস্থ্যবর্ধক টনিক হওয়ার দরুন এটি অন্ত্রের দেওয়ালগুলিকে শক্তিশালী করে তোলে এবং অন্ত্রের সংকোচন(অন্ত্রের মধ্যে খাওয়ার এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া) নিয়ন্ত্রণ করে। শিলাজিৎ যকৃৎ থেকে পিত্তের(যকৃতের নির্যাস) নিঃসরণও বাড়িয়ে তোলে যার ফলে খাবারে আর্দ্রতা বজায় রেখে তা ভাল ভাবে হজম করায়।

পাকস্থলীর আলসারের জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for stomach ulcers in Bengali

গ্যাস্ট্রিক আল্সার  হল পাকস্থলীর অস্বস্তির প্রধান কারণগুলির মধ্যে একটি। কেউ যদি অবিরত চাপের মধ্যে থাকেন বা নির্ধারণ করে দেওয়া ওষুধ খান তাহলে তাদের মধ্যে গ্যাস্ট্রিক আল্সার হওয়ার ঝুঁকি বেশি। কিছু গবেষণা দাবি করে যে শিলাজিৎ গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিডের ক্ষরণ কমিয়ে পাকস্থলীর দেওয়ালগুলির ভাঙ্গন আটকানোর মাধ্যমে সেখানকার ভিতরের আস্তরণটিকে পুড়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে। যেহেতু মানুষের ওপর প্রভাব বোঝার গবেষণা এখনও বাকি, সেহেতু পাকস্থলীর আল্সারের চিকিৎসার জন্য শিলাজিৎ সেবন করার আগে আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সাথে কথা বলে নেওয়া ভাল।

হৃদয়ের জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for heart in Bengali

গবেষণাগারে আদর্শ প্রাণীর ওপর হওয়া গবেষণা ইঙ্গিত করে যে শিলাজিতের ডোজ নির্ভরশীল প্রভাব রয়েছে রক্তচাপ ও হৃৎস্পন্দনের ওপরে। কম মাত্রায় খেলে শিলাজিৎ যেমন হৃৎস্পন্দন কমায়, বেশি মাত্রায় খেলে সম্ভাব্য প্রাণঘাতক পর্যায়ে বাড়িয়ে তোলে।

যদিও মানুষের ওপর কোনরকম গবেষণা এই দাবিকে সমর্থন করেনা। তাই যদি আপনি হৃদয় সংক্রান্ত কোন দশায় ভোগেন, কোন আকারে শিলাজিৎ সেবন করার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলে নেওয়া ভাল।

রপক্তাল্পতার জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for anemia in Bengali

রক্তাল্পতা এমন একটি দশা যা হিমোগ্লোবিন ও লাল রক্তকোষের(RBC) নিম্ন মাত্রা দিয়ে চিহ্নিত। আয়ুর্বেদিক ডাক্তারদের মতে, শিলাজিৎ লোহার একটি সমৃদ্ধ উৎস, রা রক্ত তৈরি হওয়ার অন্যতম উপাদান। জীবজন্তুদের ওপর করা কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করে যে নিয়মিত শিলাজিৎ সেবন শরীরে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা লাল রক্তকোষের গুন্তি বাড়ায়।

উপরন্তু শিলাজিৎ হল একটি আয়ুর্বেদিক টনিক ও পুনরুজ্জীবক। সেই কারণে দুর্বলতাক্লান্তির মত সমস্যা, যা রক্তাল্পতার লক্ষণ হিসেবে ধরা হয়, তার থেকে মুক্তি দেয়। যদিও এই দাবিগুলি ক্লিনিকাল পরিবেশে নিশ্চিত হওয়া এখনও বাকি।

অর্শ্বর জন্য শিলাজিৎ - Shilajit for piles in Bengali

অন্ত্রের অংশ হিসেবে প্রত্যেকেরই খানিকটা করে হেমোরয়েড টিস্যু থাকে। হেমোরয়েড বা অর্শ্বের দশা তখন হয় যখন এই টিস্যু জ্বলে যায়। হেমোরয়েডের জ্বলে যাওয়া মলদ্বারে ব্যথা, চুলকানিপয়ঃপ্রণালির সময় রক্তপাতের মত লক্ষণের দিকে গড়ায়। অর্শ্ব হওয়ার প্রধান কারণ অন্ত্র এবং মলদ্বারের যায়গায় অতিরিক্ত চাপ পড়া।

আয়ুর্বেদে শিলাজিৎকে অর্শ্ব সারানোর ক্ষেত্রে কার্যকর মনে করা হয়। নিয়মিত শিলাজিৎ সেবন করলে তা রক্তনালীগুলিকে শক্তি যোগায় যাতে চাপ পড়লে ধমনী ফেটে না যায়। উপরন্তু আয়ুর্বেদ অনুযায়ী, শিলাজিৎ মলের চাপ তৈরি হওয়া কমায়। যেহেতু লোকের অনুপাতে সঠিক ডোজ ভিন্ন হয়, তাই অর্শ্ব সারাতে শিলাজিৎ  ব্যবহার করার আগে আপনার আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিলে ভাল।

পুরুষদের জন্য শিলাজিতের উপকারিতা - Shilajit benefits for men in Bengali

গবেষণায় দেখা গেছে যে অলিগস্পারমিয়ার(শুক্রাণুর নিম্ন গুন্তি)চিকিৎসা করতে শিলাজিৎ কার্যকর। 60জন লোকের একটি দলে 90দিন ধরে 100 গ্রামের একটি করে শিলাজিতের ক্যাপসুল দেওয়ার পর দেখা যায় শুক্রাণুর মোট গুন্তির সাথে সাথে বীজকোষ উত্তেজক হরমোনের(FSH, পুরুষদের একটি যৌন হরমোন যা শুক্রাণু গঠনের জন্য দায়ী) মাত্রা বাড়তে দেখা যায়।

আরেকটি গবেষণায় দেখা যায় টেস্টোস্টেরন ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য পুরুষ হরমোনের মাত্রা বাড়ায় শিলাজিৎ। তাই পুরুষদের যে কোনও ধরণের যৌন সমস্যার সম্ভাব্য উপশম হল শিলাজিৎ।

(আরও পড়ুনঃ টেস্টোস্টেরন কিভাবে বারান যায়)

শিলাজিতের অ্যান্টিঅক্সিডান্ট বৈশিষ্ট - Shilajit antioxidant properties in Bengali

প্রক্রিয়াযাত শিলাজিৎ হল একটি দুর্দান্ত অ্যান্টিঅক্সিডান্ট। রাসায়নিক গবেষণা ইঙ্গিত করে যে পরিশোধিত শিলাজিৎ অপরিশোধিত শিলাজিতের চেয়ে অনেকটাই ভালো অ্যান্টিঅক্সিডান্ট। শিলাজিতে আছে প্রাথমিক অ্যান্টিঅক্সিডান্ট হিসেবে গণ্য হওয়া ফাল্ভিক অ্যাসিড এবং ভিটামিন। এই যৌগগুলি শরীরে থাকা ফ্রি র‍্যাডিকাল খুঁজে বের করে পরিষ্কার করে এবং অক্সিডেটিভ চাপ কমায়।

আপনি কি ভাবছেন ফ্রি র‍্যাডিকাল কি?

ফ্রি র‍্যাডিকাল হল এক ধরণের অক্সিজেনযাত প্রজাতি যা বিপাকীয় কার্যকলাপের কারণে গঠিত হয়। চাপ এবং নিম্ন মানের জীবনধারার জন্য ফ্রি র‍্যাডিকাল তৈরি হয়। অতিরিক্ত পরিমাণে ফ্রি র‍্যাডিকাল শরীরের ক্রিয়াকলাপের ওপর ক্ষতিকারক। অ্যান্টিঅক্সিডান্ট হিসেবে শিলাজিৎ উপকারী , শরীরের প্রায় প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ঠিকঠাক কাজ করার জন্য। উপরন্তু, কম অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের কারণে সূক্ষ্ম দাগ, বলিরেখা এবং অকালে আসা বার্ধক্যের চিহ্ন কমে। কেই বা চায় তাকে অকালেই বয়স্ক দেখাক?

উচ্চতার সমস্যায় শিলাজিৎ - Shilajit for high altitude problems in Bengali

যদি আপনি কোন পাহাড়ি জায়গায় বেড়াতে গিয়ে থাকেন, কিছু সাধারণ জিনিস আপনি লক্ষ্য করে থাকবেন যেমন, কানের মধ্যে এক ধরনের আওয়াজ বা নিশ্বাস নিতে খানিক সমস্যা। পাহাড়ি অসুস্থতার কারণে এই পরিবর্তনগুলি ঘটে, যা উচ্চতার কারণে হওয়া চাপ ও পরিবেশগত অবস্থার পার্থক্যের কারণে সৃষ্টি হয়। এর অন্যান্য লক্ষণগুলি হল বমি এবং বমি বমি ভাব, ডায়রিয়া, পেটের সমস্যা, খিদে না পাওয়া, কাশি, তন্দ্রাভাব, মাথা ঘোরা এবং ক্লান্তি।

বয়স্ক ও অসুস্থদের ক্ষেত্রে পাহাড়ি অসুস্থতায় আরও চরম লক্ষণ দেখা দেয় যেমন খিদে হারিয়ে যাওয়া, পেটে ব্যথা, পেশিতে টান লাগা ইত্যাদি।

ভারতে হওয়া একটি গবেষণা অনুযায়ী এই সব উচ্চতার কারণে হওয়া সমস্যার একক সমাধান হল শিলাজিৎ। এই গবেষণা ইঙ্গিত করে শিলাজিতে আছে ফাল্ভিক আসিদ(একটি রাসায়নিক যৌগ)ও কিছু খনিজ বস্তু যা ঠান্ডা লাগা এবং হাইপোক্সিয়ার(শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ কম থাকা) লক্ষণগুলি থেকে রেহাই দেয়। উপরন্তু, শিলাজিৎ একটি টনিকের মত কাজ করে শরীরের প্রায় প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ঠিকঠাক কাজ করতে সাহায্য করে। উপরন্তু শিলাজিৎ সেবন করলে তা উচ্চতার কারণে হওয়া চাপউদ্বেগের মত সমস্যা দুর করে। পরিশেষে মূত্রবর্ধক হিসেবে ফুসফুস থেকে অতিরিক্ত তরল বার করে দিয়ে ফুসফুসের এডিমা(ফুসফুসে তরল জমে যাওয়া) থেকে মুক্তি দেয়।

অ্যালজাইমার’সে শিলাজিৎ - Shilajit for Alzheimer's in Bengali

অ্যালজাইমার’স হল একটি নিউরোডিজনেরটিভ অসুখ যা যুক্ত করা হয় স্মৃতিভ্রংশ ও চেতনা(মনযোগ) হারিয়ে যাওয়ার সাথে। আয়ুর্বেদে বলা হয়, অন্যান্য কিছু গাছড়ার সাথে শিলাজিৎ ব্যবহার করলে উদ্বেগ, মেজাজের পরিবর্তন, বিরক্তি, বিষণ্নতা ইত্যাদি লক্ষণগুলির থেকে মুক্তি দেয়, যা সাধারণত অ্যালজাইমার’সের সাথে যুক্ত করা হয়ে থাকে।

সাম্প্রতিক কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করে যে শিলাজিৎ অ্যালজাইমার’সের লক্ষণগুলির থেকে মুক্তি দেয় এবং এই অসুখের ছড়িয়ে পড়ার গতি কমায়। এও বলা হয়েছে শিলাজিতে থাকা ফাল্ভিক অ্যাসিড টাউ প্রোটিনের জমে ওঠা আটকায়, যেটি মস্তিষ্কে থাকা প্রাকৃতিক প্রোটিন কিন্তু অতিরিক্ত জমলে স্নায়বিক রোগ দেখা দেয়।

যদিও মানুষের অ্যালজাইমার’সের ওপর শিলাজিতের সঠিক প্রক্রিয়া ও প্রভাব বুঝতে আরও গবেষণার প্রয়োজন।

শিলাজিৎ সাধারণত রজক বা পাউডারের আকারে ব্যবহৃত হয়ে থাকলেও এটি ক্যাপসুল, ট্যাবলেট, তেল, ক্রিম বা প্রসাধনী হিসেবেও উপলব্ধ। শিলাজিৎ বাণিজ্যিক ভাবে সিরাপ ও তরল আকারেও বাজারে উপলব্ধ।

আদর্শভাবে, কোনও বিশেষ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়া 300-500মিঃগ্রাঃ শিলাজিৎ রোজ খাওয়া যায়। আয়ুর্বেদিক ডাক্তারেরা পরামর্শ দিয়ে থাকেন 1-3ফোঁটা তরল শিলাজিৎ দুধের সাথে মিশিয়ে খাওয়ার ভাল স্বাস্থ্য উপভোগ করার জন্য।

শিলাজিতের সঠিক ডোজ এবং খাওয়ার মেয়াদ বয়েস এবং শারীরিক অবস্থা অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে থাকে। তাই আপনার জন্য শিলাজিতের সঠিক ডোজ নির্ধারণ করার জন্য একজন আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নেওয়া শ্রেয়।

শিলাজিতের যদিও প্রচুর উপকারিতা রয়েছে, তবুও কিছু সতর্কতা সম্পর্কে আপনার সচেতন হওয়া উচিৎ, যেমনঃ

  • কিছু খনিজ বস্তুতে সমৃদ্ধ থাকার দরুন কাঁচা অবস্থায় শিলাজিৎ মানুষের খাওয়ার অযোগ্য। কাঁচা অবস্থায় শিলাজিৎ অ্যাসপারগিলাসের মত বেশ কিছু ছত্রাকে দুষিত থাকতে পারে। সবসময় প্রক্রিয়াজাত শিলাজিৎ ব্যবহার করা উচিৎ।
  • ডাক্তারদের মতে, থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত রুগীদের শিলাজিৎ এরিয়ে চলা উচিৎ কারণ এতে লোহার মাত্রা অত্যন্ত বেশি।
  • সম্প্রতি, গর্ভবতী মহিলাদের সেবনের ক্ষেত্রে শিলাজিৎ নিরপদ কিনা সে বিষয়ে কোনরকম তথ্য উপলব্ধ নয়। তাই যদি আপনি সন্তানসম্ভবা হন, শিলাজিৎ সেবন করার আগে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে নেওয়া উচিৎ।
  • আয়ুর্বেদের ডাক্তারদের মতে, যদি আপনি গাঁটের বাতে ভোগেন, আপনার শিলাজিৎ খাওয়া উচিৎ নয় কারণ এটি ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বাড়ায় বলে জানা যায়।(আরও পড়ুনঃ রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বৃদ্ধি)

উপরন্তু, যদি আপনি নির্ধারণ করে দেওয়া ওষুধ খান, তাহলে আপনার আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নেওয়া খুবই জরুরি কারণ যে কোন আকারে শিলাজিৎ আপনার চিকিৎসায় হস্তক্ষেপ করতে পারে।


उत्पाद या दवाइयाँ जिनमें Shilajit है

তথ্যসূত্র

  1. Harsahay Meena, H. K. Pandey, M. C. Arya, and Zakwan Ahmed. Shilajit: A panacea for high-altitude problems. Int J Ayurveda Res. 2010 Jan-Mar; 1(1): 37–40. PMID: 20532096
  2. J. M. Williams et al. Epithelial Cell Shedding and Barrier Function: A Matter of Life and Death at the Small Intestinal Villus Tip. Vet Pathol. 2015 May; 52(3): 445–455. PMID: 25428410
  3. Nader Shahrokhi, Zakieh Keshavarzi, Mohammad Khaksari. Ulcer healing activity of Mumijo aqueous extract against acetic acid induced gastric ulcer in rats. J Pharm Bioallied Sci. 2015 Jan-Mar; 7(1): 56–59. PMID: 25709338
  4. Goel RK1, Banerjee RS, Acharya SB. Antiulcerogenic and antiinflammatory studies with shilajit. J Ethnopharmacol. 1990 Apr;29(1):95-103. PMID: 2345464
  5. Biswas TK et al. Clinical evaluation of spermatogenic activity of processed Shilajit in oligospermia. Andrologia. 2010 Feb;42(1):48-56. PMID: 20078516
  6. Melissa L. Times, Craig A. Reickert, M.D. Functional Anorectal Disorders. Clin Colon Rectal Surg. 2005 May; 18(2): 109–115. PMID: 20011350
  7. Goel RK1, Banerjee RS, Acharya SB. Antiulcerogenic and antiinflammatory studies with shilajit. J Ethnopharmacol. 1990 Apr;29(1):95-103. PMID: 2345464
  8. Paranjpe P1, Patki P, Patwardhan B. Ayurvedic treatment of obesity: a randomised double-blind, placebo-controlled clinical trial. J Ethnopharmacol. 1990 Apr;29(1):1-11. PMID: 2278549
  9. Ranjan K. Pattonder, H. M. Chandola, S. N. Vyas. Clinical efficacy of Shilajatu (Asphaltum) processed with Agnimantha (Clerodendrum phlomidis Linn.) in Sthaulya (obesity). Ayu. 2011 Oct-Dec; 32(4): 526–531. PMID: 22661848
  10. Leanne Hodson. Adipose tissue oxygenation: Effects on metabolic function. Adipocyte. 2014 Jan 1; 3(1): 75–80. PMID: 24575375
  11. Pravenn Sharma et al. SHILAJIT: EVALUTION OF ITS EFFECTS ON BLOOD CHEMISTRY OF NORMAL HUMAN SUBJECTS. Ancient Science of Life Vol : XXIII(2) October, November, December 2003 3DJHV
  12. Carlos Carrasco-Gallardo, Leonardo Guzmán, Ricardo B. Maccioni. Shilajit: A Natural Phytocomplex with Potential Procognitive Activity. Int J Alzheimers Dis. 2012; 2012: 674142. PMID: 22482077
  13. C Velmurugan, B Vivek, E Wilson, T Bharathi, T Sundaram. Evaluation of safety profile of black shilajit after 91 days repeated administration in rats. Asian Pac J Trop Biomed. 2012 Mar; 2(3): 210–214. PMID: 23569899
  14. N. S. Gaikwad et al. Effect of shilajit on the heart of Daphnia: A preliminary study. J Ayurveda Integr Med. 2012 Jan-Mar; 3(1): 3–5. PMID: 22529672
ऐप पर पढ़ें